পূজোর শেষ শপিং এর কিছু ফটোগ্রাফি

in hive-129948 •  2 months ago 

বন্ধুরা
আপনারা সবাই কেমন আছেন? আশা করি, আপনারা সবাই ভালো আছেন। সবাইকে অগ্রীম শারদ শুভেচ্ছা। আর মাত্র পূজার ৩ দিন বাকি রয়েছে। চারিদিকে পূজোর ধুম পড়ে গেছে। এবার যেভাবে পূজোর শপিং করা শুরু করেছিলাম সেভাবে শেষ করতে পারিনি।শেষ দিকে বেশ কিছু সমস্যার সমুখীন হতে হয়। তারপরও পূজো বলে কথা শপিং করতেই হবে। এখনো পুরো সমস্যা মিটেনি। একটার পর একটা ঝামেলা লেগেই থাকছে।আমার শপিং শেষ হয়েছিলো বেশ কিছুদিন আগে। বাকি ছিলো টিনটিন বাবু ,ও তার বাবার এবং তার কাকার। এরপর সময় সুযোগ মতো ২৪ তারিখের দিকে আমি , টিনটিন বাবু ও তার কাকা শপিং এ গেলাম।

IMG_20220920_191146.jpg

IMG_20220920_190957.jpg
আগেই বলেছি আপনাদের দাদার শপিং এ যেতে ভালো লাগে না। আমার জন্য তার যেতে হয় বাধ্য হয়ে। তাই ওইদিন আমাদের সাথে যায়নি। আমাকে বললো তোমরা যাও আমি অন্য একদিন যাবো। আমি ভাবলাম হয়তো জরুরি কোন কাজ আছে বা মিটিং আছে। তাই আমি ও আর জোর করিনি। আমরা শপিংয়ে গিয়ে ওর কাকা দুটো প্যান্ট ও দুটো টি শার্ট নিলো। আর বেশি কিছু নিতে চাইলো না। বলে আমার আছে এখন আর কিছুই নিবো না। বলে দীপাবলী তে আবার কিনবো।

IMG_20220920_191052.jpg

IMG_20220920_191128.jpg

IMG_20220920_192154.jpg

IMG_20220920_192144.jpg
এরপর আপনাদের দাদার জন্য দুটো শার্ট ও প্যান্ট নিলাম। আরো কিছু নিতে চেয়েছিলাম কিন্তু পরে ভাবলাম ওকে নিয়ে এসে বাকি গুলো কিনবো। পরে বাবুর জন্য অনেক গুলো নিয়ে ছিলাম। আসলে ওর বাবা বলেছিলো বাবুকে পূজোর ৫ দিনে ৫ টি জামা কিনতে হবে। তাই ওর জন্য একটু বেশি কেনা হলো।
এর পরের দিন আমি আপনাদের দাদাকে নিয়ে আবার শপিংয়ে গেলাম। সে তো যাবে না আমাকে বলে এই তো কিনে আনলে আবার কি কিনবো আর আমার সব আছে কিছু লাগবে না। আসলে ও কোনদিন নিজের জন্য কিছু কিনতে চায় না এবং নিজে হাতে ধরে কিছু কিনে না। আমরা যা দিবো ও তাই নেয়। আমাকে বলে পূজায় আমার জন্য অনেক গুলো বই অর্ডার করেছি তো আর কি লাগবে। এবার আপনারাই বলুন তো ? পূজোয় মানুষ জামা প্যান্ট কিনে আর সে বই কিনেছে। এটা আমি কি করে মেনে নেই। যাই হোক আমি রাগ চেপে রেখে বললাম ভালো করেছো এখন চলো আমার সাথে জুতো , পাঞ্জাবি কিনতে। সে তো যাবে না। আমি জোর করে নিয়ে গেলাম। পরে এক জোড়া জুতো নিলো। পরে আমার আর একটি জুতো পছন্দ হলো। আমি বল এটাও নেও। কিন্তু আর নিবে না। আমাকে বলে একজনের এক জোড়া জুতো হলে চলে যায়। আমি সামনের পূজায় কিনবো। পরে জোর করাতে নিলো।

IMG_20220925_190255.jpg

IMG_20220925_190637.jpg
জুতো কিনে বেরিয়ে এসে বলে এত জুতো কিনার দরকার কি ছিল। তুমি শুধু শুধু অনেক টাকা খরচ করো। আসলে ও নিজের বিষয়ে খুবই কিপ্টে। তবে ও অন্য সবাইকে দামী দামী জিনিস কিনে দেয়। এবং যত দামী জিনিস চাও কিনে দিবে। ওর জন্য পাঞ্জাবী একটা ওয়াল্লেট ও বেল্ট। আর আপনাদের দাদা আমার জন্য দুটো ড্রেস নিলো। বাবুর জন্মদিনে যে পাঞ্জাবি পড়েছিলো ওটাই নিয়েছিলাম। গাড়িতে বসে বলে আমার পিছনে অনেক টাকা খরচ হয়ে গেলো। যত টাকা দিয়ে আমার জন্য কিনেছো এই টাকা দিয়ে আমার অনেক গুলো বই কিনতে পারতাম। শুধু শুধু আমার
জন্য জামা জুতো কিনে টাকা নষ্ট করেছো। এবার একটু রেগে গিয়ে বললাম চুপচাপ বসে থাকো। আর কোন কথা বলবে না। তাহলে কিন্তু আরো অনেক কিছু কিনবো। আমাকে কেনো তবে তোমাদের জন্য আমার না। প্রতি বছর তার জন্য কিনতে গেলে এই সব কথা শুনতে হয়।আপনারাই বলুন তো এই অদ্ভুত মানুষ আপনারা আগে দেখেছেন কি না? সারাদিন ল্যাপটপ এর সামনে থাকতে থাকতে সবকিছু ভুলে যায়। আর নিজেও রোবট হয়ে গেছে । আর বেশি কিছু এবার কেনা কাটা হয়নি। কারণ এবার আমাদের পূজোয় বাংলাদেশ যাচ্ছি না। পরে সবকিছু ক্যান্সেল হয়ে গেল।

যাই হোক আজ এই পর্যন্ত আগামীদিন নতুন কোন বিষয় নিয়ে আবার আসবো। সেই পর্যন্ত সবাই ভালো থাকবেন।

Authors get paid when people like you upvote their post.
If you enjoyed what you read here, create your account today and start earning FREE STEEM!
Sort Order:  

টিনটিন বাবুর জন্য শপিং করতে গিয়েছেন জেনে খুব ভালো লাগলো। পুজোর শেষ শপিংয়ে আপনার তোলা ফটোগ্রাফি গুলো দেখতে অনেক অসাধারণ লাগছে। শপিং মহলে অনেক সুন্দর মুহূর্ত উপভোগ করেছেন। টিনটিন বাবুর জন্য অনেক অনেক শুভেচ্ছা এবং শুভকামনা রইলো। ধন্যবাদ জানাই দিদি এত সুন্দর পোস্ট শেয়ার করার জন্য।

দিদি পূজা মানে আপনাদের এক অন্যরকম আনন্দ। বাড়িতে সকলের জন্য অনেক কিছু কেনাকাটা করতে হয়, সেই সাথে অনেক ঝামেলাও কিন্তু পোহাতে হয়। দিদি, দাদা কিন্তু অনেক মজা করে কথাটা বলেছে যে, তোমার জন্য এতগুলো ড্রেস- না কিনে, এই টাকা দিয়ে আমি অনেক বই কিনতে পারতাম। দিদি এই কথাটার মাঝে কিন্তু অনেকটা রোমান্টিক ভাব আছে।
বৌদি যারা বই পাগল তারা কিন্তু বই ছাড়া অন্য কিছু পছন্দ করে না।বই তাদের সবকিছু।আসলে আমরা একটা কথা সকলেই জানি, বই মানুষের পরম বন্ধু।আর তাই দাদা সবসময় পরম বন্ধুকে নিজের জন্য নিয়ে আসে।আর বৌদি দাদা যে,উদার এবং সাধু প্রকৃতির মানুষ।কারন এ ধরনের লোকদের নিজের কিছু প্রয়োজন হয় না, হলে ও পরের জন্য বিলিয়ে দেয়।পুজোর শেষ শপিং এর ফটোগ্রাফিকে আমাদের টিনটিন বাবুকে খুব কিউট লাগছে।আর বৌদি দাদার পোস্টে জেনেছিলাম এবার পুজোতে বাংলাদেশ আসবে।কিন্তু ক্যান্সেল হওয়াতে একটু মনটা খারাপ হয়ে গেল।যাইহোক যা কিছু হয় ভালোর জন্য হয়ে থাকে।আগামীতে বাংলাদেশে পরিবারের সবাইকে নিয়ে আসবেন।আপনাদের জন্য শুভকামনা রইল বৌদি।

হাহাহা দাদা যে বই প্রেমি একজন মানুষ দেখলেই বুঝা যায়। পূজোর মধ্যেও দাদা অনেকগুলো বই অর্ডার দিয়ে দিলো কিন্তু জামা কাপড় কেনার বেলায় দাদা নেই 🤭। আপনি দুটি পাঞ্জাবী আর জুতো না কিনলে কিনতোই না আসলে। দাদাকে লাল পাঞ্জাবীতে মানিয়ে ছিল খুব। এছাড়াও আপনার চয়েস অনেক ভালো দিদি। শার্ট দুটিও সুন্দর হয়েছে।

আমাদের দাদা একজন ভীষণ বই প্রিয় মানুষ তাই দাদার কাছে সবচেয়ে ভালোলাগার জিনিস হলো বই তাই দাদার আর অন্য কোনকিছুতে আগ্রহ নেই। দাদা খুব ভালো করেই জানেন যে তিনি কিছু না কিনলে কি হবে বৌদি ঠিকই তার জন্য কিছু না কিছু কিনবে তাই দাদা আপনার উপর ভরসা করে চুপচাপ বসে থাকে বৌদি। পুজোর শপিং খুবই সুন্দর হয়েছে শার্ট দু'টির কালার খুবই সুন্দর লাগছে। টিনটিন সোনাকে খুব মিষ্টি লাগছে। সুন্দর মুহুর্ত গুলো শেয়ার করার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ বৌদি।

চমৎকার লাগলো দিদি পূজোর শেষ মুহূর্তের মার্কেটের কেনাকাটার গল্প শুনে। আরো ভালো লাগলো দাদার জন্য জোর করে জুতো কেনার বিষয়টিকে। এভাবেই বেঁচে থাক আপনাদের যুগল জুটি এই প্রত্যাশা ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি। সাথে শারদীয় শুভেচ্ছা রইল।

যে কোনো উৎসবে এর আগে কেনাকাটা করতে খুব ভাল লাগে। আপনাদের তো পুজোয় অনেক আনন্দ হয়। সবচেয়ে বর উৎসব।এজন্য অনেক কেনাকাটার প্রয়োজন পড়ে।টিনটিনের এর জন্য অনেক কিছু কিনেছেন জেনে ভালো লাগলো। দাদা তো বই পাগল মানুষ তাই বই ছাড়া আর কি আর কিনবেন। অনেক ধন্যবাদ বৌদি এত সুন্দর কিছু ফটোগ্রাফি আমাদের মাঝে শেয়ার করার জন্য।পূজা খুব ভালো কাটুক এই কামনা করি।

আমাকে বলে পূজায় আমার জন্য অনেক গুলো বই অর্ডার করেছি তো আর কি লাগবে। এবার আপনারাই বলুন তো ?

মেধাবী মানুষরা এইভাবেই চিন্তা করে বৌদি । তবে সত্য দাদা একদম বাস্তবিক রোবট, এটা আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি । খুব খারাপ লাগলো বাংলাদেশে আসবেন না , এইটা শুনে ।
তারপরেও যেখানেই থাকুন, উৎসব হোক আনন্দময় , এমনটাই প্রত্যাশা করি বৌদি । শুভেচ্ছা রইল।

পুজোর শেষ শপিংয়ে আপনার তোলা ফটোগ্রাফি গুলো দেখতে অনেক সুন্দর হয়েছে বৌদি। আপনি অনেক সুন্দর ভাবে ফটোগ্রাফি গুলো করার পাশাপাশি অনেক সুন্দর হবে বর্ণনাগুলো উপস্থাপন করেছেন।
আপনার জন্য শুভকামনা রইল

বর্তমানে তো মানুষ বেশি বেশি বই কেনে না। কিন্তু আমাদের দাদা সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমধর্মী তিনি বেশি বেশি বই পড়তে অভ্যস্ত। সবার চাহিদা যেখানে পোশাক, দাদার চাহিদা সেখানে বই। সব রোবট কেই মানুষ পরিচালনা করে আর দাদা যদি রোবট হয়ে থাকে তাহলে দাদাকে হয়ত আপনিই পরিচালনা করছেন।

আর নিজেও রোবট হয়ে গেছে ।

আপনি আছেন তো মানুষ বানানোর জন্যে।😜
আমাদের দাদা আসলে বিশাল বই প্রেমি।তাও আপনি আছেন বলে একটু সব কিছু কেনাটেনা হয়,নাহলে বোধহয় তাও হতোনা।

নতুন জুতা পায়ে বাবুকে খুবই ভালো লাগছে। আসলে আমরা এই দিনগুলোকেই বেশি আনন্দ বোধ করে থাকি যখনি বাচ্চাদের মুখে হাসি দেখতে পাই কোন উৎসব উপলক্ষে যদি কিছু কিনে দিতে পারি। আপনার এবং আপনার পরিবার পরিজনের জন্য শুভকামনা রইল।

পুজোর শেষ শপিংয়ে তো ভালোই কেনাকাটা করেছেন বৌদি। আসলে আমার মনে হয় সব পুরুষ মানুষগুলো এরকমই হয় নিজেদের জন্য তেমন কিছু কিনতে চায় না। আসলে দাদা বই আর কাজ পাগল মানুষ তো এজন্য দাদা এগুলো ছাড়া আর কিছুই ভালো লাগেনা। তবে দাদার জন্য যে দুটো টি-শার্ট কিনেছেন আমার কাছে খুবই ভালো। টিনটিন বাবুকে কালো গেঞ্জি পড়ায় খুবই সুন্দর লাগছে। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ বৌদি আমাদের সাথে আপনার শপিংয়ের কিছুটা সময় শেয়ার করার জন্য।

জুতো কিনে বেরিয়ে এসে বলে এত জুতো কিনার দরকার কি ছিল। তুমি শুধু শুধু অনেক টাকা খরচ করো। আসলে ও নিজের বিষয়ে খুবই কিপ্টে।

পুরো লেখাটা ঠিকই ছিলো বৌদি কিন্তু এই জায়গায় এসে আটকে গেলাম এবং বেশ কিছুটা সময় হাসলাম, হা হা হা হা।

হ্যা, শুধু দাদা আমারও বেশ বিরক্ত লাগে শপিং এ যাওয়ার কথা শুনলে, যতটা সম্ভব এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি, আর যখন উপায় থাকে না তখন পিছে পিছে থাকি। তবে শার্ট দুটোর কালার কিন্তু আমার বেশ পছন্দ হয়েছে।

দিদি কি একজন সোনার মানুষ পেয়েছেন আপনি। সবাই পূজায় জামা কাপড় কিনে আর দাদা বই কিনে। আসলে দাদার কোন তুলনা হয় না। কারো সাথে দাদার তুলনা হবে না। ধন্যবাদ দিদি।

দিদি পুজোতে সবাই জামা প্যান্ট পাঞ্জাবি জুতা এসব কেনে। অবাক হলাম দাদা বইয়ের অর্ডার দিয়েছে বলে।আসলে দাদা সব সময় ব্যতিক্রম তার চিন্তা ধারা গুলো আর দশজনের মত নয়।তবে দাদার জন্য শার্ট দুইটার কালার কিন্তু দারুণ।অনেক অনেক ধন্যবাদ দিদি পুজোর বাকি কেনাকাটা আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য♥♥

বৌদি দাদার শপিং করতে ভালো লাগে না আর পূজাতে বই অর্ডার করেছে এটা বেশ মজার বিষয় কিন্তু।দাদার জন্য আপনার কেনা জামা দুটি বেশ হয়েছে আর টিনটিনের জন্মদিনে আপনার পছন্দ করা পাঞ্জাবিতে দাদাকে বেশ মানিয়েছিল।দাদা বইপ্রেমীদের মধ্যে একজন।ধন্যবাদ বৌদি।